অনলাইনে আপনাকে আরও নিরাপদে রাখতে পরামর্শ

শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি করতে, আপনার ডিভাইসকে সুরক্ষিত রাখতে, ফিশিংয়ের চেষ্টাকে এড়িয়ে যেতে এবং নিরাপদে ইন্টারনেট ব্রাউজ করার ব্যাপারে সাহায্য করতে আমরা আপনার জন্য কিছু দ্রুত পরামর্শ এবং পেশাদার পদ্ধতি একত্রিত করেছি।

আপনার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা শক্তিশালী করুন

  • নিরাপত্তা পরীক্ষা করুন

    আপনার Google অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রাখার একটি সহজ উপায় হল নিরাপত্তা যাচাই করা। আপনার জন্য তৈরি করা প্রয়োগযোগ্য নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রস্তাবনা আপনাকে দেওয়ার জন্য আমরা এই টুলটি তৈরি করেছি যাতে আপনার Google অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা আরও শক্তিশালী হয়ে ওঠে।

  • শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি করুন

    আপনার অনলাইন অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রাখার জন্য শক্তিশালী ও অনন্য পাসওয়ার্ড তৈরি করা হল অন্যতম গুরুত্ত্বপূর্ণ একটি পদক্ষেপ। অন্যের পক্ষে আন্দাজ করা কঠিন অথচ আপনার পক্ষে মনে রাখা সহজ এমন একটি শব্দগুচ্ছ তৈরি করে আপনি কাজটি করতে পারেন। অথবা কোনও একটি বাক্যের প্রতিটি শব্দের প্রথম অক্ষর নিয়েও আপনি একটি পাসওয়ার্ড তৈরি করতে পারেন। পাসওয়ার্ডটিকে আরও শক্তিশালী করতে এটিকে কমপক্ষে আটটি অক্ষর দিয়ে তৈরি করা প্রয়োজন, কারণ পাসওয়ার্ড যত বড় হয় তার শক্তি তত বেশি হয়।

    পাসওয়ার্ডনিরাপত্তার প্রশ্নের উত্তর তৌরির সময়, বিভ্রান্তিকর উত্তর ব্যবহার করার চিন্তা করুন।এতে অন্য কারো উত্তরটি অনুমান করা কঠিন হবে।

  • প্রত্যেক অ্যাকাউন্টের জন্য অনন্য পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন

    Google অ্যাকাউন্ট, সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল ও রিটেল ওয়েবসাইটের মতো একাধিক অ্যাকাউন্টে একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে লগ-ইন করলে আপনার নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। এটি আপনার বাড়ি, গাড়ি এবং অফিসের জন্য একই তালা ব্যবহার করার মত – কেউ একটির অ্যাক্সেস পেলেই বাকিগুলিও বিপদগ্রস্ত হতে পারে। প্রতিটি অ্যাকাউন্টের জন্য অনন্য পাসওয়ার্ড তৈরি করলে এই ঝুঁকি এড়ানো যায় এবং আপনার অ্যাকাউন্ট আরও সুরক্ষিত থাকে।

  • একাধিক পাসওয়ার্ড ট্র্যাক করুন

    পাসওয়ার্ড ম্যানেজার, আপনি বিভিন্ন সাইট এবং অ্যাপে আপনার যেসব পাসওয়ার্ড ব্যবহার করেন তা সুরক্ষিত রাখতে এবং ট্র্যাক করতে সাহায্য করে। আপনার Google অ্যাকাউন্ট-এ এই ধরনেরই একটি পাসওয়ার্ড ম্যানেজার আছে। আপনাকে সুরক্ষিতভাবে এবং সহজেই সাইন-ইন করাতে Google-এর পাসওয়ার্ড ম্যানেজার আপনার সেভ করা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে।

  • ২-ধাপে যাচাইকরণের মাধ্যমে হ্যাকারদের থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখুন

    আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করতে ব্যবহারকারীর নাম ও পাসওয়ার্ড ছাড়াও আপনাকে একটি সেকেন্ডারি ফ্যাক্টর ব্যবহার করার সুযোগ দিয়ে, ২-ধাপে যাচাইকরণ আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করার অধিকার নেই এমন কাউকে সেটির অ্যাক্সেসে বাধা দিতে সাহায্য করে। যেমন, Google-এর ক্ষেত্রে সেটি Google Authenticator অ্যাপের সাহায্যে জেনারেট করা ছয়-সংখ্যার কোনও কোড হতে পারে অথবা নির্ভরযোগ্য কোনও ডিভাইসের মাধ্যমে লগ-ইন করার জন্য Google অ্যাপের কোনও প্রম্পট হতে পারে।

    ফিশিং এড়ানোর বিষয়ে অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য, আপনার কম্পিউটারের USB পোর্টে ঢোকানো যায় অথবা নিয়ার ফিল্ড কমিউনিকেশন বা ব্লুটুথ ব্যবহার করে আপনার মোবাইল ডিভাইসের সাথে কানেক্ট করা যায় এমন কোনও ফিজিক্যাল ​​নিরাপত্তা কী আপনি কিনতে পারেন। অ্যাক্টিভিস্ট, সাংবাদিক এবং রাজনৈতিক প্রচারাভিযানকারী টিম সহ যারা ফিশিংয়ের তীব্র আক্রমণের শিকার হতে পারেন বলে মনে করছেন, ২-ধাপে যাচাইকরণের একমাত্র পদ্ধতি হিসেবে ফিজিক্যাল নিরাপত্তা কী ব্যবহারের মাধ্যমে Google-এর উন্নত সুরক্ষা প্রোগ্রাম তাদেরকে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিরক্ষা দেয়।

আপনার ডিভাইস সুরক্ষিত রাখুন

  • সফটওয়্যার আপ-টু-ডেট রাখুন

    নিরাপত্তা সংক্রান্ত দুর্বলতার থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে ওয়েব ব্রাউজার, অপারেটিং সিস্টেম, প্লাগ-ইন এবং ডকুমেন্ট এডিটরে সবসময় আপ-টু-ডেট সফটওয়্যার ব্যবহার করুন। সফটওয়্যার আপডেট করার জন্য বিজ্ঞপ্তি পেলে, যত দ্রুত সম্ভব সেটি আপডেট করুন।

    আপনার নিয়মিত ব্যবহার করা সফটওয়্যারের লেটেস্ট ভার্সন ইনস্টল করা আছে কিনা তা পর্যালোচনা করে দেখুন। Chrome ব্রাউজার সহ কিছু পরিষেবা নিজে থেকে আপডেট হয়ে যাবে।

  • সম্ভাব্য ক্ষতিকারক অ্যাপ থেকে আপনার ফোনকে দূরে রাখুন

    সবসময় বিশ্বস্ত কোনও সূত্র থেকে আপনার মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন। আপনার Android ডিভাইস সুরক্ষিত রাখতে, Google Play স্টোর থেকে আপনি কোনও অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে Google Play নিরাপত্তা সেটিকে পরীক্ষা করে এবং একই সঙ্গে অন্য কোনও সূত্র থেকে ডাউনলোড করা সম্ভাব্য ক্ষতিকারক কোনও অ্যাপ রয়েছে কিনা তা দেখার জন্য আপনার ডিভাইসটি সময়ে সময়ে পরীক্ষা করে।

    আপনার ডেটা সুরক্ষিত রাখতে:

    • অ্যাপগুলির পর্যালোচনা করুন এবং যেগুলি আপনি ব্যবহার করেন না সেগুলিকে মুছে ফেলুন।
    • আপনার অ্যাপ স্টোর সেটিংসে গিয়ে অটো-আপডেট চালু করুন।
    • শুধুমাত্র নির্ভরযোগ্য অ্যাপকেই আপনার লোকেশন এবং ছবির মত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ডেটার অ্যাক্সেস দিন।
  • স্ক্রিন লক ব্যবহার করুন

    যখন আপনার কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট বা ফোন ব্যবহার করছেন না তখন সেটির স্ক্রিন লক করে রাখুন, যাতে অন্য কেউ আপনার ডিভাইস ব্যবহার করতে না পারে। অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য, আপনার ডিভাইসটি স্লিপ মোডে গেলে যাতে নিজে থেকেই লক হয়ে যায় তেমনভাবে সেট করুন।

  • আপনার ফোন হারিয়ে গেলে সেটি লক করুন

    আপনার ফোনটি কখনও হারিয়ে বা চুরি হয়ে গেলে, আপনার ডেটা কয়েকটি সংক্ষিপ্ত ধাপে সুরক্ষিত করতে আপনার Google অ্যাকাউন্টে যান এবং “আপনার ফোন খুঁজুন” বিকল্পটি বেছে নিন। Android হোক বা iOS ডিভাইস, এই দুই ক্ষেত্রেই আপনি আপনার ফোনের অবস্থান রিমোটভাবে শনাক্ত এবং লক করতে পারবেন যাতে অন্য কেউ আপনার ফোন ব্যবহার করতে এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য অ্যাক্সেস করতে না পারে।

ফিশিং এড়িয়ে চলুন

  • সন্দেহজনক ইউআরএল অথবা লিঙ্ক সবসময় যাচাই করে নিন

    ফিশিং হল এমন এক প্রচেষ্টা যেখানে আপনাকে ভুল বুঝিয়ে আপনার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত তথ্য যেমন পাসওয়ার্ড জানার চেষ্টা করা হয়। এটি অনেক প্রকারের হতে পারে, তাই সন্দেহজনক ইমেল এবং ওয়েবসাইট কীভাবে চিনবেন তা জানা গুরুত্ত্বপূর্ণ। যেমন, কোনও হ্যাকার এমন একটি লগ-ইন পৃষ্ঠা তৈরি করতে পারে যেটি বৈধ বলে মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে তা জাল। আপনার পাসওয়ার্ড জেনে নেওয়ার পর সেই হ্যাকার আপনার অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে পারে অথবা আপনার মেশিন সংক্রামিত করতে পারে।

    ফিশিং এড়াতে:

    • সন্দেহজনক লিঙ্কে কখনও ক্লিক করবেন না।
    • আপনি যে ওয়েবসাইট বা অ্যাপে ডেটা লিখছেন তার ইউআরএল ভালোভাবে পরীক্ষা করে সেটি বৈধ কিনা সবসময় ভাল করে দেখে নিন।
    • কোনও তথ্য জমা করার আগে সাইটটির ইউআরএল “https” দিয়ে শুরু হচ্ছে কিনা তা দেখুন।
  • ছদ্মবেশীদের থেকে সতর্ক থাকুন

    আপনার চেনা কোনও ব্যক্তির থেকে কোনও অস্বাভাবিক মেসেজ পেলে, ইমেলটির যথার্থতা যাচাই না করে কোনও মেসেজের উত্তর দেবেন না বা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। কারণ এমন হতে পারে যে তার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়ে গেছে।

    এই বিষয়গুলির উপর বিশেষ নজর দিন:

    • অর্থের জন্য জরুরি আবেদন
    • বিদেশে আটকে পড়েছেন বলে কোনও ব্যক্তির দাবি
    • ফোন চুরি গেছে এবং কল করা যাচ্ছে না বলে কোনও ব্যক্তির দাবি
  • ব্যক্তিগত তথ্যের বিষয়ে কেউ অনুরোধ করলে সে বিষয়ে সতর্ক হন

    পাসওয়ার্ড, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বা ক্রেডিট কার্ডের নম্বর এবং এমনকি আপনার জন্মদিনের মত ব্যক্তিগত তথ্য জানতে চাইছে এমন কোনও সন্দেহজনক ইমেল, ইনস্ট্যান্ট মেসেজ বা পপ-আপ উইন্ডোর উত্তর দেবেন না। আপনার ব্যাঙ্কের মত কোনও নির্ভরযোগ্য সাইট থেকেও এই ধরণের কোনও মেসেজ এলে, কখনও তার কোনও লিঙ্কে ক্লিক করবেন না বা উত্তর দেবেন না। এর থেকে, সরাসরি তাদের ওয়েবসাইট বা অ্যাপে গিয়ে আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করা ভাল।

    মনে রাখবেন, বৈধ ওয়েবসাইট এবং পরিষেবা কখনও আপনার পাসওয়ার্ড বা আর্থিক তথ্য ইমেলের মাধ্যমে জানতে চেয়ে আপনাকে মেসেজ করবে না।

  • ইমেল স্ক্যাম, জাল পুরস্কার এবং উপহারের থেকে সতর্ক থাকুন

    অচেনা ব্যক্তির থেকে পাওয়া মেসেজ সবসময় সন্দেহজনক হয়, বিশেষ করে যদি তা অবিশ্বাস্য রকমের ভাল প্রস্তাব নিয়ে আসে — যেমন কিছু জেতার ঘোষণা, কোনও সমীক্ষার উত্তর দেওয়ার জন্য পুরস্কার দিবার প্রস্তাব, দ্রুত অর্থ উপার্জনের পদ্ধতি ইত্যাদি। কখনও সন্দেহজনক লিঙ্কে ক্লিক করবেন না এবং সন্দেহজনক ফর্ম বা সমীক্ষায় ব্যক্তিগত তথ্য লিখবেন না।

  • কোনও ফাইল ডাউনলোড করার আগে ভাল করে দেখে নিন

    সংক্রামিত ডকুমেন্ট এবং পিডিএফ অ্যাটাচমেন্টের মাধ্যমেও কিছু অত্যাধুনিক ফিশিং আক্রমণ হতে পারে। কোনও সন্দেহজনক অ্যাটাচমেন্ট পেলে, Chrome বা Google ড্রাইভ ব্যবহার করে সেটি খুলুন এবং আপনার ডিভাইসে সংক্রমণের ঝুঁকি কমান। আমরা কোনও ভাইরাস শনাক্ত করলে আপনাকে একটি সতর্কবার্তা দেখাব।

নিরাপদ নেটওয়ার্ক এবং কানেকশনে ব্রাউজ করা

  • নিরাপদ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করুন

    সর্বজনীন বা বিনামূ্ল্যে ওয়াই-ফাইয়ের বিষয়ে সতর্ক থাকুন, এমনকি যেগুলি ব্যবহারের সময় পাসওয়ার্ড প্রয়োজন হয়, সেগুলির থেকেও সতর্ক থাকুন। এই নেটওয়ার্কগুলি এনক্রিপ্ট করা নাও থাকতে পারে, তাই আপনি সর্বজনীন নেটওয়ার্কের সাথে কানেক্ট করলে আশেপাশের যেকোনও ব্যক্তি আপনি যে ওয়েবসাইটে যাচ্ছেন এবং সেখানে যে তথ্য টাইপ করছেন সেই ধরণের ইন্টারনেট অ্যাক্টিভিটিগুলির উপর নজরদারি করতে পারেন। সর্বজনীন বা বিনামূ্ল্যে ওয়াই-ফাই আপনার একমাত্র বিকল্প হলে, কোনও সাইটের কানেকশন নিরাপদ কিনা তা Chrome ব্রাউজার আপনাকে অ্যাড্রেস বারে জানাবে। এনক্রিপ্ট করা ও শক্তিশালী পাসওয়ার্ড দিয়ে সুরক্ষিত ওয়াই-ফাই ব্যবহার করে বাড়িতেও আপনার ব্রাউজিং অ্যাক্টিভিটির গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন।

  • সংবেদনশীল তথ্য লেখার আগে কানেকশন নিরাপদ কিনা দেখুন

    ওয়েব ব্রাউজ করার সময় – বিশেষত পাসওয়ার্ড বা ক্রেডিট কার্ড নম্বরের মত সংবেদনশীল কোনও তথ্য লিখতে চাইলে – আপনি যে সাইটে যাচ্ছেন সেটির কানেকশন নিরাপদ কিনা তা দেখুন। সেটি একটি নিরাপদ ইউআরএল হলে, Chrome ব্রাউজার ইউআরএল ফিল্ডে ধূসর রঙের সম্পূর্ণভাবে বন্ধ তালার একটি আইকন দেখাবে। আপনি যে ওয়েবসাইটে যান তার সাথে আপনার ব্রাউজার বা অ্যাপকে সুরক্ষিতভাবে কানেক্ট করে HTTPS আপনার ব্রাউজ করাকে নিরাপদ রাখে।

আমাদের নিরাপত্তা প্রয়াস সম্পর্কে আরও জানুন

আপনার নিরাপত্তা

ইন্ডাস্ট্রির সর্বোচ্চ মানের নিরাপত্তার সাহায্যে আমরা অনলাইনে আপনাকে সুরক্ষিত রাখি৷

আপনার গোপনীয়তা

আমরা গোপনীয়তার এমন ব্যবস্থা তৈরি করি যা সকলের পক্ষে উপযুক্ত।

পরিবারের জন্য

আপনার পরিবারের জন্য অনলাইনে কী উপযুক্ত তা ম্যানেজ করতে আমরা আপনাকে সাহায্য করি।